Home / খেলা / রিয়াল – বার্সা মুখোমুখি

রিয়াল – বার্সা মুখোমুখি

barsaআবারও আরেকটি রোমাঞ্চ । কোচিং পেশাতে নতুন, তা ছাড়া খেলোয়াড়ি জীবনেও আলগা ভদ্রতার ধার ধারেননি। যে কারণেই হোক, জিনেদিন জিদান খোলাখুলিই বলেছেন, শেষ ম্যাচে তাঁরা গ্রানাডার ‘ফেবার’ চান। রিয়াল মাদ্রিদ যে শেষ ম্যাচটা জিতলেও হবে না। বার্সাকেও হারতে হবে, নিদেন ড্র। নিজেদের মাঠে গ্রানাডা কি পারবে না বার্সাকে রুখে দিতে?

এরই মধ্যে স্পেনের পত্রপত্রিকায় শুরু হয়ে গেছে গ্রানাডাকে ‘রিয়াল’-এর অনুগত দল হিসেবে প্রতিষ্ঠার চেষ্টা। গ্রানাডা মিডফিল্ডার জাভি মার্কেজ নাকি তাঁর ছেলের নাম মডরিচের নামের সঙ্গে মিলিয়েই রেখেছেন। রিয়াল খেলোয়াড় মাতেও কোভাচিচের সঙ্গে ছাপা হচ্ছে গ্রানাডা গোলরক্ষক ইভান কেলাভার ছবি। গ্রানাডার কোন কোন খেলোয়াড় রিয়ালের যুব একাডেমি বা ‘বি’ দলে খেলে বড় হয়েছে, এসবও মনে করিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ভাবখানা এমন, শেষ ম্যাচে যেন গ্রানাডা নয়, রিয়াল নাম্বার টু-র মুখোমুখি হবে বার্সা!
আবার এমনও লেখা হয়েছে, গ্রানাডার খেলোয়াড়রা দুই দিন ধরে অনুশীলন করেনি। তবে কি বার্সার ম্যাচটা তারা হালকাভাবে নিল? অথচ এই ম্যাচটাই তো এবারের লিগের শিরোপা–নির্ধারক! গ্রানাডা করজোরে বলছে, ‘ভাই আমরা রিয়ালেরও নই; বার্সারও নই। আমরা আমরাই।’
গ্রানাডা গোলরক্ষক কেলাভা বললেন, ‘মিডিয়া তো এরই মধ্যে রিয়ালের সঙ্গে সম্পর্ক বানিয়ে দিয়েছে, দাবি করছে আমরা নাকি রিয়ালের অনেক কাছের।’ ভিন্ন রকম খবরও যে আসছে, তাও জানেন। দুই দিন অনুশীলন না করার ব্যাখ্যাও দিলেন, ‘আসলে আমার দুই দিন ধরে কেবল উদ্‌যাপনই করে যাচ্ছি।’
করার কথা। সেভিয়ার মতো দলকে হারিয়ে গত ম্যাচে তারা নিশ্চিত করেছে অবনবন এড়ানো। এটা তাদের জন্য শিরোপা জয়ের আনন্দের সমান। তাই চলছে এত উৎসব। কেলাভা বলছেন, ‘এখানে রীতিমতো পাগলামি হচ্ছে। তিন দিন ধরে আমরা কেবল রেলিগেশন এড়ানোই উদ্‌যাপন করেযাচ্ছি। শেষ রাউন্ডে আমার বার্সেলোনার সঙ্গে খেলব। রিয়াল খেলবে দেপোর্তিভোর সঙ্গে, ওরাও কিন্তু আগের ম্যাচে রেলিগেশন এড়িয়েছে। গ্রানাডা এমন একটা শহর যেখানে রিয়াল বা বার্সার তেমন কোনো ভক্ত-সমর্থক নেই।’
কোভাচিচ তাঁর বন্ধু। বন্ধুর জন্য ম্যাচটা জান লড়িয়ে দিয়েই জিততে চান কেলাভা। তবে বন্ধুকে কথা দিয়ে রাখতে পারছেন না, ‘কোভাচিচ আমার খুব কাছের একজন বন্ধু। কিন্তু আপনাকে এটাও বুঝতে হবে, বার্সা যদি শুরুতেই গোল দিয়ে বসে, খেলা ওখানেই শেষ। তবে ২০১৪ সালে বার্সা আমাদের মাঠে খেলতে এসেছিল নিজেদের ফেবারিট ধরে নিয়ে, শেষে ম্যাচটা হেরেছিল ১-০ গোলে। কল্পনা করুন তো মেসি-নেইমাররা আমাদের মাঠে এসে শিরোপা হারিয়ে ফেলল…!’

About টাঙ্গাইল ইনফো

Check Also

ক্যাচ  ছেড়ে ম্যাচ হাড়ল-হায়দরাবাদ

ক্যাচ ছেড়ে ম্যাচ হাড়ল-হায়দরাবাদ

ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস। কথাটার মর্মার্থ কাল হাড়ে হাড়ে টের পেল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ইনিংসের …