Home / হালচাল / রাগের মাথায় কিছু কাজ করা ঠিক না

রাগের মাথায় কিছু কাজ করা ঠিক না

angry“রেগে গেলেন তো হেরে গেলেন” রাগ শুধু আপনার মন খারাপ করে না, এটি আপনার দৈনিক কার্যকলাপেও প্রভাব বিস্তার করে থাকে। রাগান্বিত অবস্থায় কিছু কাজ করা থেকে বিরত থাকুন।
১। ঘুমাতে যাওয়া
রাগান্বিত অবস্থায় ঘুমাতে যাবেন না। ঔড়ঁৎহধষ ড়ভ ঘবঁৎড়ংপরবহপব এর মতে, ঘুম মস্তিষ্কে নেতিবাচক ইমোশনগুলো প্রিজার্ভ করে রাখে। যা আবেগকে বাড়িয়ে দিয়ে স্নায়ুর উপর প্রভাব ফেলে দিয়ে থাকে। তর্ক অথবা আরগুমেন্টস করে ঘুমাতে গেলে, সকালে ঘুম ভাঙ্গার পরও তার রেশ থেকে যায়। যার কারণে ৭-৮ ঘন্টা ঘুমানোর পরও ক্লান্ত লাগে।

২। গাড়ি চালানো
রাগান্বিত অবস্থায় গাড়ি চালানো অনেক বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। গবেষণায় দেখা গেছে রাগান্বিত ড্রাইভার সবচেয়ে বেশি দূর্ঘটনা ঘটিয়ে থাকেন। “ রাগান্বিত অবস্থায় রাগ প্রকাশ করার প্রয়োজন পড়ে, আর তা গাড়ির উপর দিয়ে প্রকাশ করে থাকেন অনেকেই, যা পরিবর্তে দূর্ঘটনায় রূপ নিয়ে থাকে”- এমনটি মনে করে থাকেন উধারফ ঘধৎধহম, চয.উ., ধ পষরহরপধষ ঢ়ংুপযড়ষড়মরংঃ রহ ঝধহঃধ গড়হরপধ, ঈধষরভ।

৩।সিদ্ধান্ত গ্রহণ
যেকোন ভাল সিদ্ধান্ত ঠান্ডা মাথায়, চিন্তা ভাবনা করে নিতে হয়। আপনি যদি রাগান্বিত অবস্থায় অথবা কোন প্রেশারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকেন তা প্রায় সময় ভুল সিদ্ধান্ত হয়ে থাকে। তাই রাগান্বিত অবস্থায় যেকোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

৪। খাবার খাওয়া
অনেকেই রাগ কমানোর জন্য বিভিন্ন খাবার খেয়ে থাকেন। আর এই সময় বেশিরভাগ মানুষই জাংক ফুড, ফাস্ট ফুড অস্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে থাকেন। কধঃযু এৎাঁবৎ, চযউ, ধঁঃযড়ৎ ড়ভ ঈড়হয়ঁবৎ ণড়ঁৎ ঝঃৎবংং ডরঃয গরহফ/ইড়ফু ঞবপযহরয়ঁবং মনে করেন “ রাগান্বিত অবস্থায় প্রায় সবাই উচ্চ চিনি যুক্ত, উচ্চ ফ্যাট যুক্ত, কার্বোহাইড্রেইড খাবার খেয়ে থাকেন, যা শরীরে ক্ষতি করার পাশাপাশি আবেগকেও প্রভাবিত করে থাকে। আবার অনেক সময় অতিরিক্ত খাবার খাওয়ার কারণে পেটের নানা সমস্যায় দেখা দিয়ে থাকে।

৫। ফেসবুকে পোষ্ট করা
রাগ প্রকাশের জন্য অনেকেই ফেসবুক এবং অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়ায় অনুভূতি প্রকাশ করে পোষ্ট করে থাকেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় কোন কিছু প্রকাশ করার আগে একবার ভাবুন, আপনার পোষ্ট সবাই দেখছে, পরবর্তিতে এটি সমস্যার কারণ হতে পারে।

৬। সবার সাথে কথা বলা
আপনি যখন সবার সাথে কথা বলবেন তখন আপনার ভিতরে থাকা রাগ প্রকাশ পেয়ে যাবে। যা থেকে আপনাকে অন্যেরা ভুল বুঝতে পারে অথবা রাগ করতে পারে। তাই রাগান্বিত অবস্থায় অন্যদের সাথে কথা কম বলা উচিত। কারণ অন্যরা কেউ আপনার অনুভূতি বুঝবে না।

সংগৃহিত

About uddin rokon

Check Also

চুলের সাজ

মিউনিস ব্রাইডালের প্রধান রূপ বিশেষজ্ঞ তানজিমা শারমিনের মতে, স্টাইল এক হলেও বিভিন্ন ধরনের চুলে একই …