Home / খেলা / ঘুরে দারালেন-মুশফিক

ঘুরে দারালেন-মুশফিক

ঘুরে দারালেন-মুশফিকবাঁহাতি স্পিনার আসিফ হোসেনের বলটা ছিল শর্ট পিচ ধরনের। কাট করতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লাগিয়ে কট বিহাইন্ড। মুশফিকুর রহিম তবু মাঠ ছাড়ার পথে বেশ হাততালি পেলেন মোহামেডান সমর্থকদের। ড্রেসিংরুমে ঢোকার মুহূর্তে ব্যাট উঁচিয়ে দিলেন সেটার জবাবও।
মুশফিকের ৮০ বলে ৭২-এর সঙ্গে যোগ হয়েছে মোহামেডানের পুরোনো শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার উপুল থারাঙ্গার ৮১ বলে ৭০। ২১ রানে দুই ওপেনারের বিদায়ের পর তৃতীয় উইকেট জুটিতে ১৩৫ রানের জোগান দুজনের। শেষ দিকে নাজমুল হোসেন মিলনের ৪১ বলে ৭০ রানের ঝোড়ো ইনিংস। সব মিলিয়ে ৬ উইকেটে ২৮৫ করে অর্ধেক কাজ সেরেই রেখেছিলেন ব্যাটসম্যানরা। শুভাশিস রায়ের নেতৃত্বে এক বল থাকতেই ব্রাদার্সকে ২০৭ রানে অলআউট করে বোলাররা সারেন বাকি আনুষ্ঠানিকতা।
গত বছর নভেম্বর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডেতে তাঁর সর্বশেষ সেঞ্চুরি। এরপর ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে ১৮টি আন্তর্জাতিক ম্যাচে সেঞ্চুরি দূরের কথা, ফিফটিরও দেখা পাননি। অবশ্য এর মধ্যে ওয়ানডে মাত্র দুটি, ‘অফ ফর্ম’টা তাই মূলত টি-টোয়েন্টিতেই বলতে হবে। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে মুশফিকের ব্যাট এখনো নির্ভরতার প্রতীক এবং সেটি কালও বুঝল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়াম। উইকেটে শুরু থেকেই স্বচ্ছন্দ ছিলেন। ৬১ বলে ফিফটি পূর্ণ চার বাউন্ডারি আর এক ছক্কায়। নিখুঁত ইনিংসে পরে চার মেরেছেন আরও ৫টি।
অপর প্রান্তে থাকা থারাঙ্গার সঙ্গটাও ভালোই উপভোগ করে থাকবেন মুশফিক। দুজনে মিলেই গড়ে দিয়েছেন জয়ের ভিত। তবে ম্যাচ সেরা হয়েছেন ৭ নম্বরে নামা মিলন। ‘ছক্কামিলন’খ্যাত এই ব্যাটসম্যান কালও হাঁকিয়েছেন দুর্দান্ত চারটি ছক্কা ও পাঁচটি বাউন্ডারি। মিলন-ঝড়ে মোহামেডান শেষ ৫ ওভারে তোলে ৬৮। সপ্তম উইকেট জুটিতে আসা ৫৬ রানে তাঁর সঙ্গী হাবিবুর রহমানের অবদান মাত্র ৬ রান।
ব্রাদার্সে ইমরুল, নাফিস, শাহরিয়ার, তুষারদের সঙ্গে যোগ হয়েছেন জিম্বাবুয়ের শন উইলিয়ামস। ব্যাটিং লাইনআপটা একেবারে খারাপ নয়। কিন্তু শুভাশিস রায়ের করা ইনিংসের প্রথম ওভারেই ইমরুলের এলবিডব্লু যেন সব এলোমেলো করে দিল! শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ব্যাটিং-স্বর্গেও শুভাশিস ১০ ওভারে মাত্র ২৮ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ মেডেন আর ৩ উইকেট।
মাত্র ৫৩ রানে ড্রেসিংরুমে ফেরেন ব্রাদার্সের শীর্ষ পাঁচ ব্যাটসম্যান। এরপর ধুঁকে ধুঁকে শেষ ওভার পর্যন্ত চলা ইনিংসের উজ্জ্বলতম অংশ উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান জাকির হোসেনের ব্যাটিং। ৮২ বলে ৬১ রানের ইনিংসে বেশ কয়েকবারই শট খেলার সামর্থ্যের প্রমাণ দিয়েছেন এই তরুণ বাঁহাতি।

About Akib

Check Also

ক্যাচ  ছেড়ে ম্যাচ হাড়ল-হায়দরাবাদ

ক্যাচ ছেড়ে ম্যাচ হাড়ল-হায়দরাবাদ

ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস। কথাটার মর্মার্থ কাল হাড়ে হাড়ে টের পেল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ইনিংসের …