Home / মনের জানালা / “অন্তরালের অভিনয়” পর্ব-২

“অন্তরালের অভিনয়” পর্ব-২

ontoral

-কি হয়েছে তোর?এইরকম দেখাচ্ছে কেন তোকে?
আফসানার কথায় চমকে ওঠে অরণী।

-নাহ,তেমন কিছু না

-ওই যে কয়েক টা সিট পেছনেই বসা মেয়েটি তনিমা,আমার সেই ছোট্র বেলার বন্ধু।হঠাত্ ওর সাথে দেখা হয়ে গেলো,তাই একটু দেরি করে ফেলেছি।
বাবু কি তোকে খুব জ্বালিয়েছে?
আফসানা জিজ্ঞাসা করে অরণীকে!

-নাহ আপু…আমাদের স্পর্শ তো লক্ষী একটা মেয়ে।ও কি কাউকে জ্বালাতে পারে?

অরণী ছোট্র স্পর্শকে আফসানার কোলে দেয়।অরণীর বড় বোন আফসানার মেয়ে স্পর্শ।আরণীর একা জীবনের দিশা এই মেয়েটি।

একটি ছোট্র ভুল বোঝাবোঝির জন্য নিলয়ের সাথে সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পর আর কখনই কাউকে নিয়ে ভাবতে পারেনি অরণী।তাই এতবছর পরেও আজও সে একা।

একটা দীর্ঘনিশ্বাষ ফেলে আরণী।
মনে মনে বলে সেদিনও আমাকে বোঝোনি তুমি নিলয়,আর আজও বুঝলে না।
মনের গহীনে থাকা তীব্র যন্ত্রনায় আবার ভিজে ওঠে অরণীর চোখের পাতা…অতি সন্তর্পনে আড়াল করে সে জমে ওঠা দু ফোটা অশ্রুকে

এক মনে হাঁটছে নিলয়।এত বছর পর হঠাত্ অরণী আবার তার সামনে আসবে এটা কল্পনার বাইরে ছিলো নিলয়ের।
সেই একইরকম জেদী আছে মেয়েটি!পরিবর্তন হয়নি মোটেও!
যাক তবুও সুখে তো আছে।তার মত একা তো আর থাকতে হয়নি অরণীকে।
মনে মনে ভাবে নিলয়।
নিলয়ের সাথে অর্পিতার বিয়েটা শেষ মূহুর্তে ভেঙে যায়।নিলয় বুঝেছিলো অরণী ছাড়া আর কাউকে আর জীবনে স্থান দেওয়া সম্ভব না।তাই অর্পিতাকে না বলে দিয়েছিলো।
শেষ খবরটা অনেকেই পাইনি।তাই আজও অরণীর মনে অর্পিতা আর নিলয় সম্পর্কটা বদ্ধমূল।

চাপা কষ্টে নিজের ভেতরে ছটপট করে নিলয়।মনের ভেতর থেকে কেউ একজন বলে আজও ভালোবাসাটা শুধু তোমারই জন্য অরণী।

নিলয় আর অরণীর অন্তরালের অভিনয় টা তাদের নিজেদেরই অগোচরে থেকে যায়।অন্তরীক্ষে থাকা কেউ একজন হয়ত বা প্রত্যক্ষ করেও চুপ করে থাকে!
আর পথের দেবতা প্রতীক্ষায় থাকে আবার কখনও তাদের দেখা হওয়ার অপেক্ষায়।হয়ত বা সেদিন ভুল বোঝাবোঝির অবসান হলেও হতে পারে।

লিখেছেনঃ সাবিহা বিনতে রইস

About Ashiq Mahmud

Check Also

ভাত, কাপড়, ভালবাসা

( ভুমিকায় বলে নেই, গল্পের বক্তা চরিত্রটির মত আমিও নারীবাদি নই।আমি মানি নিয়তি নারী পুরুষ …